Recent Updates

"অভাবে নয় মেধার বিলুপ্তি"

2019 সালে মাধ্যমিক পরীক্ষার পর আমাদের স্কলারশিপ বেনিফিশিয়ারি হিসেবে নির্বাচিত হয় বনমালীচট্টা হাই স্কুলের ছাত্র কার্তিক সামন্ত, বাবা সেই সময় বাজারে ঝালমুড়ি বিক্রি করতেন। আমাদের কাছে মাধ্যমিকের ফলাফলের পর আবেদন জানায়। ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স স্কলারশিপ পরীক্ষা পদ্ধতিতে উত্তীর্ণ হয় কার্তিক। ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স পরিবার সেই থেকে ওর পাশে রয়েছে। উচ্চ মাধ্যমিক উত্তীর্ণ হওয়ার পর সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে রসায়ন নিয়ে স্নাতক স্তরে ভর্তি হয়। 2024 সর্বভারতীয় JAM পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হল। কার্তিকের মেধা তালিকায় স্থান 35। 


"অভাবে নয় মেধার বিলুপ্তি"

অঙ্কন দাস বোধড়া পন্থেশ্বরী হাই স্কুলের ছাত্র 2019 সালে মাধ্যমিক পরীক্ষা‌য় উত্তীর্ণ হওয়ার পর আমাদের কাছে আবেদন জানায়। বাবা স্থানীয় ছোট বাচ্চাদের টিউশন পড়িয়ে সামান্য আয় করেন। ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স এর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে স্কলারশিপ প্রাপক হিসেবে নির্বাচিত হয়। উচ্চ মাধ্যমিক উত্তীর্ণ হওয়ার পর রামকৃষ্ণ মিশন রেসিডেনসিয়াল কলেজ, নরেন্দ্রপুরে রসায়ন বিষয়ে স্নাতক স্তরে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পায় অঙ্কন। তৎকালীন অধ্যক্ষ শ্রদ্ধেয় সঞ্জীব মহারাজ এর কাছে ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স পরিবারের পক্ষ থেকে আবেদন জানালে কলেজের পক্ষ থেকে ভর্তি ফিতে ছাড়ের পাশাপাশি মাসিক যে টাকা দিতে হয় সেখানে ও ছাড়ের ব্যবস্থা করে দেন।2024 সর্বভারতীয় JAM পরীক্ষার ফলাফলে অঙ্কনের মেধা তালিকায় স্থান 41। 


"অভাবে নয় মেধার বিলুপ্তি"

বাবা দিনমজুর, মা ও কৃষি শ্রমিক ,একমাত্র দাদা দুরারোগ্য জটিল রোগে আক্রান্ত,সংসারে চরম অভাব কিন্ত অদম্য জেদ ও ইচ্ছা শক্তিকে সম্বল করে  কাঁথি দেশপ্রান ব্লকের বাসিন্দা গৌতম বেরা 2020 সালে 483 নম্বর পেয়ে বিবেকানন্দ আদর্শ শিক্ষা নিকেতন থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। ভালো রেজাল্ট সত্ত্বেও অর্থাভাবে পরিবারের সবাই কিন্তু গৌতমের আদৌ পড়া চালিয়ে যাওয়া সম্ভব কিনা সেই নিয়ে ভেবে কুলকিনারা পাচ্ছিলেন না। ঠিক সেই সময় ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স পরিবারের দুজন সদস্য  গৌতমের বাড়িতে পৌঁছান এবং পরিবারকে আশ্বস্ত করেন ছেলের পরবর্তী পড়াশুনা চালানোর দায়ভার ফেয়ার ফিল্ড এক্সলেন্সর। গৌতমের জন্য কাঁথি এবং বিভিন্ন রামকৃষ্ণ মিশনের কলেজের ফর্ম ফিলাপ করে দেওয়া হয় ll গৌতম নিজ যোগ্যতায়  রামকৃষ্ণ মিশন বিবেকানন্দ সেন্টিনারি কলেজে গনিত নিয়ে স্নাতক স্তরে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পায় ll  ভর্তি প্রক্রিয়ায় সমূহ খরচ গৌতমের হাতে তুলে দিয়ে পাশে দাঁড়ায় ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স পরিবার। এর পরের সমস্যা ছিল গৌতমের থাকা এবং খাওয়ার ব্যবস্থা করা ll ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স পরিবারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় বেলঘরিয়ার  - " বিবেক উদয় স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার সোসাইটির  " সঙ্গে, যেটি আবার রহড়া কলেজেরই প্রাক্তনীদের সংগঠন ll ওরা পাশে দাঁড়ানোর প্রতিশ্রুতি দেন, ফলে গৌতমের বিনামূল্যে থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা হয়ে যায়।l  চলতে থাকে দাঁতে দাঁত চেপে স্বপ্নকে সত্যি করার লড়াই ll  প্রতিটি সেমিস্টারেই গৌতম ধারাবাহিকভাবে আশানারূপ ফল করতে থাকে  ll বিবেক উদয়ের প্রাক্তনী দাদাদের পাশাপাশি ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স পরিবারের পক্ষ থেকে মেন্টর হিসেবে গৌতমের দায়িত্ব নিলেন IIT দিল্লীর অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর শ্রী অনন্ত মাজী মহাশয়।l  বর্তমানে গৌতম তৃতীয় বর্ষের শেষ সেমিস্টারের ছাত্র।l গত 21 শে মার্চ সর্বভারতীয় JAM  পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে  ll এই পরীক্ষায় উল্লেখযোগ্য কৃতিত্ব দেখিয়েছে গৌতম  ll তার সর্বভারতীয়  RANK 283। এভাবেই আগামী দিনে গনিত নিয়ে উচ্চশিক্ষার্থে সর্বভারতীয় প্রথম সারির চারটি  আই আই টির মধ্যে একটিতে ভর্তি হওয়া সুনিশ্চিত করেছে  ll ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স পরিবার গৌতম এর উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করে।l অদূর ভবিষ্যতে উচ্চমানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি সহ অন্যান্য অনেক খরচ  ll ফেয়ার ফিল্ড এক্সেলেন্স পরিবারের শুভানুধ্যায়ীদের কাছে আন্তরিক আবেদন গৌতম কে তার কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছে দিতে বরাবরের মতো আপনারা আপনাদের সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দিন ll  আমরা আশাবাদী ll


Our Story In Media

News of Amphan Releif Drive 

The Story of Amphan Releif Drive 

Blood Donation Camp In Mugberia 

The Story of FFE Scholarship 2022